আমাদের প্রতিজ্ঞা উদ্ভাবন, জনসেবা, সততা, নিরপেক্ষ ও তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর পৌরসভা গড়েতোলা

হবিগঞ্জ পৌরসভা
Our Mission: Green, Clean and Smart City-Habiganj

অসহায় ‘লেচু মিয়া’র পাশে মেয়র আতাউর রহমান সেলিমসহ পৌর পরিবার ॥ আনুষ্ঠানিকভাবে মালামালসহ দোকান ঘর হস্তান্তর ॥ হবিগঞ্জ পৌরসভা অসহায় মানুষের পাশে রয়েছে-মেয়র ॥

অসহায় ‘লেচু মিয়া’র পাশে মেয়র আতাউর রহমান সেলিমসহ পৌর পরিবার ॥ আনুষ্ঠানিকভাবে মালামালসহ দোকান ঘর হস্তান্তর ॥ হবিগঞ্জ পৌরসভা অসহায় মানুষের পাশে রয়েছে-মেয়র ॥

হবিগঞ্জ পুরাতন পৌরসভা রোডে জহুর আলী রেস্টুরেন্টের প্রবেশমুখেই সামরিক কায়দায় অতিথিদের স্যালুট জানাতো ক্ষুদ্র গড়নের একজন মানুষ। বিশেষ সিকিউরিটি পোষাক পরিহিত ওই ছোটখাটো মানুষটি হাসিমুখে অভিভাবাদন জানাতো রেষ্টুরেন্টের সকল কাস্টমারদের। তার হাস্যজ্জ্বল ব্যবহার ও আন্তরিকতায় তিনি হয়ে উঠেছিলেন সকলের প্রিয় পাত্র। তার নাম লেচু মিয়া। গত তিন বছর যাবত প্যারালাইজড হয়ে তিনি শয্যাশায়ী। স্ত্রী পূত্র কন্যা নিয়ে অসহায় অবস্থায় দিনাতিপাত করছেন। তার অসহায়ত্ব দুর করায় চেষ্টায় তার পাশে দাড়িয়েছেন হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আতাউর রহমান সেলিম ও পৌর পরিবার।
বৃহস্পতিবার বিকেলে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘লেচু মিয়া’র স্বপ্নের বাতিঘর’ নামের একটি নতুন দোকানঘর মালামালসহ লেচু মিয়ার কাছে হস্তান্তর করা হয়। চাবি হস্তান্তরের সময় উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আতাউর রহমান সেলিম, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মোঃ আলমগীর চৌধুরী, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোছাব্বির বকুল, হবিগঞ্জ পৌরসভার প্যানেল মেয়র-১ কাউন্সিলর মোঃ জাহির উদ্দিন, হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নূর উদ্দিন বুলবুল, পৌর নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ জাবেদ ইকবাল চৌধুরীসহ পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ।
মেয়র আতাউর রহমান সেলিম বলেন,‘ লেচু মিয়া জন্মগতভাবে শারীরিক প্রতিবন্ধী হলেও সে রেস্টুরেন্টের রিসিপশনের দায়িত্ব পালন করতো। সে সব সময় হাসিখুশি থাকতো। লেচু মিয়া এখন অসুস্থ, চলাচল করতে পারে না। আমরা তাকে একটি দোকান ঘর দিচ্ছি। হয়তো এটিতে তার চাহিদা মেটাতে পারবে না। কিন্তু আমরা তার পাশে থেকে তাকে উৎসাহ দিচ্ছি।’ মেয়র বলেন,‘আমরা পৌরসভার পক্ষ হতে লেচু মিয়ার ছেলে ও মেয়ের লেখাপড়ার খরচ বহন করবো।’ তিনি আরো বলেন,‘গ্যাংগ্রিন রোগে পা হারানো পৌরসভার পরিচ্ছন্নতাকর্মী আছকির মিয়া ও লেচু মিয়াকে আমরা দোকানঘর দিয়েছি। ভবিষ্যতে তাদের জীবিকা ও পরিবারের জন্য আমরা আরো সহযোগিতা করবো।’ মেয়র আতাউর রহমান সেলিম লেচু মিয়ার চিকিৎসার জন্যও সহযোগিতার আশ্বাস দেন।
উল্লেখ্য, লেচু মিয়ার অসুস্থ হওয়া ও তার অসহায়ত্ব মেয়রসহ পৌর পরিষদের নজরে আনেন হবিগঞ্জ পৌরসভার নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ জাবেদ ইকবাল চৌধুরী। মেয়র আতাউর রহমান সেলিম তার সহযোগিতায় এগিয়ে আসেন। সাথে সাথে পৌরপরিষদের সদস্য ও কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দও লেচু মিয়ার সহযোগিতায় ভূমিকা রাখেন। বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে দোকানঘরের চাবি লেচু মিয়ার হাতে হস্তান্তর করা হলো।
চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মোঃ আলমগীর চৌধুরী ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোছাব্বির বকুল। তারাও লেচু মিয়াকে সহযোগিতা করবেন বলে আশ্বস্থ করেন।#